জানুয়ারী 21, 2022
সুরক্ষা নিয়ে আলোচনা কম, চিকিৎসা ব্যয় বাড়ছে

সুরক্ষা নিয়ে আলোচনা কম, চিকিৎসা ব্যয় বাড়ছে

মানুষ প্রয়োজনের সময় মানসম্পন্ন চিকিৎসা পাচ্ছে না। আর্থিক সুরক্ষা অনেকের নেই। সরকারের উদ্যোগে ঘাটতি আছে।

সর্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষা বা ইউনিভার্সাল হেলথ কাভারেজ নিয়ে কথা কিছু হচ্ছে, প্রকল্প হচ্ছে, তবে বাস্তবে কাজ বিশেষ কিছু হচ্ছে না। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর অধ্যাপক আ ফ ম রুহুল হক স্বাস্থ্যমন্ত্রী হন। তিনি দায়িত্বে থাকার সময় সর্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিয়ে আলোচনা শুরু হয়। তারপর মোহাম্মদ নাসিম স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নেন, আর প্রতিমন্ত্রী হন জাহিদ মালেক। দুজন দায়িত্ব নেওয়ার পর ২০১৬ সালে টাঙ্গাইলের তিনটি উপজেলায় স্বাস্থ্য সুরক্ষা কর্মসূচি (এসএসকে) নামে একটি দিশারী প্রকল্প শুরু হয়েছিল।

জাহিদ মালেক এখন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। স্বাধীন একটি গবেষক দল এসএসকে কর্মসূচি মূল্যায়ন করেছে। মার্চে দেওয়া মূল্যায়ন প্রতিবেদনে কর্মসূচিতে নানা ত্রুটি ও অসংগতি ধরা পড়েছে। অন্যদিকে দেশের মানুষের স্বাস্থ্য খাতে নিজস্ব ব্যয় বেড়েই চলেছে। অথচ সর্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষার একটি প্রধান লক্ষ্য ব্যক্তির নিজের ব্যয় কমানো। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নীতিনির্ধারক, পেশাজীবী, সাধারণ মানুষ কারও কাছেই সর্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষার ধারণা পরিষ্কার নয়। এ নিয়ে জাতীয় সংসদে কার্যকর কোনো আলোচনা বা বিতর্ক হতে দেখা যায়নি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক সৈয়দ আবদুল হামিদ প্রথম আলোকে বলেন, সর্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষার ধারণার ব্যাপকতা ও গভীরতা অনেকের কাছেই স্পষ্ট নয়। অনেকে বলেন, দেশের সব মানুষ স্বাস্থ্যসেবার আওতায় আছে, সব মানুষের চিকিৎসা নেওয়ার সুযোগ আছে। বাস্তবে সব মানুষ সেবা পাচ্ছে না, যারা সেবা পাচ্ছে তাদের অনেকেই মানসম্পন্ন সেবা পাচ্ছে না। অনেকে সেবা নিতে গিয়ে নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছে।